Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

১। পল্লী সমাজসেবা কার্যক্রম (আর,এস,এস)ঃ-

 

          সমাজসেবা অধিদফতর কর্তৃক ১৯৭৪ সনে আর,এস,এস কার্যক্রমটি চালু করা হয়। ১৯৮০ সন হতে এউ কার্যক্রমের আওতায় দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচি হিসাবে তৎকালীন থান পর্যায়ে ঘূনার্য়মান তহবিল হিসাবে ঋণ কার্যক্রম চালু করা হয়। তারই ধারা বাহিকতা হিসাবে সিরাজদিখান উপজেলায় ২৮,৮৭,০০০/= টাকা ঘূনার্য়মান তহবিল হিসাবে মাঠে ঋণ বিতরণ করা হয়। এই কার্যক্রমের মাধ্যমে সিরাজদিখান উপজেলার ৭২টি গ্রামে অনগ্রসর পশ্চাদ পদ দারিদ্র সীমার নীচে বসবাসকারী জনগোষ্টিকে স্ববলম্বী করে গড়ে তোলার জন্যেই কার্যক্রমটি বালু বয়েছে। ঋণ কার্যক্রমের আওতায় বর্তমান নীতিমালা অনুযায়ী ৫০০০/= টাকার স্থলে সবের্বাচ্য- ৩০,০০০/= টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদন করার অনুমোদন রয়েছে। এখান থেকে নীতিমালা মোতাবেক কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

 

২। পল্লী মাতৃকেন্দ্র কার্যক্রম (আর,এম,সি)ঃ-

 

          পল্লী এলাকার দরিদ্র নজগোষ্ঠিকে আরোও গতিশীল আর জণ্য সমাজসেবা অধিদপ্তর পৃথক ভাবে এই কার্যক্রমটি বালু করে। এই কার্যক্রমের মাধ্যমে শুধুমাত্র দরিদ্র মজিলাদেরকে কর্মক্ষম ও স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলার জন্য সিরাজদিখান উপজেলায় এ খাতে ঘৃর্নায়মান তহবিল হিসাবে ১১,৩৫,০০০/= টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। কার্য্যক্রম অব্যহত আছে।

 

 

৩। এসিদগ্ধ মহিলা ও শারীরিক প্রতিবন্ধীদের ঋণ কার্যক্রমঃ-

 

          অস্বচ্ছল এবং দরিদ্র প্রতিবন্ধী পুরুষ ও মহিলাদের কল্যাণে এই কার্য্যক্রমটি চালু করা হয়। সমাজ কল্যাণ মন্ত্রনালয় এর অধীন সমাজসেবা অধিদপ্তর মাঠ পর্যায়ে এ কার্য্যক্রম বাস্তবায়ন করে আসছে। সিরাজদিখান উপজেলা সর্ব মোট= ১৪,২৭,০০০/= টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে।

 

৪। আশ্রয়ন প্রকল্পঃ-

 

          চরগুলিয়া ৮০টি পরিবারের  মধ্যে ৮,০০,০০০/= (আট লক্ষ) টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। ঘূর্নায়মান তহবিল হিসেবে এ অর্থ ব্যবহৃত হচ্ছে। ঋণ কার্যক্রমের মাধ্যমে আশ্রয়ন প্রকল্পের মানুষগুলোকে স্বাবলম্বী করাই এর মূল উদ্দেশ্য।

 

৫। বিধবা ও স্বামী পরিত্যাক্ত ভাতাঃ-

সিরাজদিখান উপজেলার ২২৪৫ জন বিধবা মহিলা মাসিক ৩০০/= টাকা হারে ভাতা পাচ্ছেন। সোনালী ব্যাংক ৭টি শাখা হতে এ ভাতা নামীয় একাউন্টের মাধ্যমে গ্রহন করছেন।

৫। বয়স্ক ভাতা কার্যক্রমঃ-

 

          সিরাজদিখান উপজেলায় ১৪টি ইউনিয়নে ১৮২টি গ্রামে ৫৪৫৫ জন বয়স্ক পুরুষ ও মহিলা যাদের বয়স ৬৫ বছর বা তার উর্দ্ধে তাদেরকে মাসিক ৩০০/= টাকা করে সোনালী ব্যাংকের ৭টি শাখা হতে এ অর্থ দেয়া হয়। যাতে বয়স্ক দরিদ্র মানুষগুলো একটু ভালভাবে বাচতে পারে। নামীয় একাউন্টের মাধ্যমে এ ভাতা দেয়া হয়।

৬। অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতা কার্যক্রমঃ-

 

          অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধী পুরুষ ও মহিলা যারা একেবারে অসহায় তাদের কল্যাণে এই কার্য্যক্রমটি চালু করা হয়। সিরাজদিখান উপজেলা ৫৫৮ জন প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে মাসিক ৩০০/= টাকা করে সোনালী ব্যাংকের ৭টি শাখা হতে এ ভাতা প্রদান করা হয়। নামীয় একাউন্টের মাধ্যমে এ ভাতা দেয়া হয়।

 

 

৭। মুক্তিযোদ্ধা সম্মনী ভাতা কার্য্যক্রমঃ-

 

          সিরাজদিখান উপজেলা বসবাসরত স্থায়ী বাসিন্দা ১৪৬ জন মুক্তিযোদ্ধাকে মাসিক ২০০০/= (দুই হাজার) টাকা করে সোনালী ব্যাংক সিরাজদিখান শাখা হতে মুক্তিযোদ্ধা সম্মনী প্রদান করা হয়।

৮। অধ্যায়নরত প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা উপবৃত্তি কার্য্যক্রমঃ-

 

          সিরাজদিখান উপাজেলায় প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্য্যায়রত ২৬ জন শিক্ষার্থীকে স্তর ভিত্তিক বেতন বাবদ এই উপবৃত্তি প্রদান করা হয়। সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের মাধ্যমে এই উপবৃত্তি প্রদান কার্য্যক্রমটি চালু রয়েছে। সমাজসেবা অধিদপ্তর এই কার্য্যক্রম বাস্তবায়ন করে আসছে।

৯। নিবন্ধনকৃত ক্যাপিটেশন গ্রান্ট প্রাপ্ত এতিমখানঃ-

 

সিরাজদিখান উপজেলা ক্যপিটেশন গ্র্যান্ট প্রাপ্ত ৪টি এতিমখানায় মাসিক মাথাপিছু ১০০০/- টাকা করে মোট ৪৬ জন এতিম শিশুকে এ অর্থ দেওয়া হয়। মেখরনগর, কেয়াইন, মধ্যপাড়া ও বালুরচর এ ৪টি ইউনিয়নে এতিখানা অবস্থিত। এতিমখানা ভালভাবে পরিচালিত হচ্ছে।

 

১০। নিবন্ধনকৃত সেচ্ছাসেবী সংস্থা

         

          সিরাজদিখান উপজেলায় মোট ৮৩টি সেচ্ছাসেবী সংস্থা রয়েছে। তার মধ্যে ৩৭ টি সংস্থা সক্রিয় আছে। সক্রিয় সংস্থা সমূহাবভিন্ন বৃদ্ধিমূলক প্রাশক্ষন কর্মসূচীর মাধ্যমে যুবক যুবতীদের কর্মক্ষ করে গড়ে তোলার জন্য ব্যৃপৃত রয়েছে বাংলাদেশ সমাজ কল্যান পরিষদ হতে এ সমস্থকে বাৎসরিক আর্থিক অনুদান দিয়ে থাকে।

 

১১। লিল্লাহ বোডিং এর ছাত্র/ছাত্রীদের প্রতিনকে ১,০০০/= টাকা হারে ২০৫ জন ছাত্র/ছাত্রীকে ২০,৫,০০০/= টাকা অনুদান প্রদান করা হয়েছে।